৮ টি কমন মিস্টেক বা ভুল যা ডিপোজিট করার সময় সচরাচর আমাদের ইউজাররা করে থাকে।

►ভুল নং ১ – ভুল পেমেন্ট অপশন বাছাই করা    
আপনাদের সদয় অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে, আমাদের একপমাত্র ডিপজিট পেমেন্ট অপশন হল – ‘ক্যাশ আউট’। ‘সেন্ড মানি’ কিংবা ‘মেক পেমেন্ট’ না। আমাদের একমাত্র ফর্মাল পেমেন্ট চ্যানেল হল -‘Cash Out’. তাই, আবারও বলছি আপনারা কখনওই ‘সেন্ড মানি’ কিংবা ‘মেক পেমেন্ট’ করবেন না। সুতরাং, সঠিক পেমেন্ট অপশন-টি নির্বাচন করুন অন্যথায় ভুল পেমেন্ট অপশন নির্বাচন করে আপনার পেমেন্ট হাতছাড়া করলে সে জন্য Baji  দায়বদ্ধ থাকবে না। ব্যাংককপে মাধ্যমে কীভাবে ডিপোজিট করবেন সে সম্পর্কে আরও জানতে অনুগ্রহপূর্বক এখানে  ক্লিক করুন।

 

►ভুল নং ২ – ডিপোজিট রিকোয়েস্ট না পাঠিয়ে শুধু ক্যাশ আউট করা
Baji-তে ডিপোজিট মূলত ২ টি ধাপে সম্পন্ন হয়। প্রথম ধাপটি আপনি যখন কোম্পানির bikash/rocket.nagad নাম্বারে ক্যাশ আউট করেন। দ্বিতীয় ধাপটি হল সফল ক্যাশ আউটের পর Baji ওয়েবসাইটের ডিপোজিট অপশনে গিয়ে সেখানে থাকা ডিপোজিট ফর্মটি নির্ভুলভাবে পূরণ করে ডিপোজিট রিকোয়েস্ট পাঠানো। মনে রাখবেন, ডিপোজিট রিকোয়েস্ট না পাঠালে আপনি ক্যাশ আউট করবার পরেও আপনার একাউন্টে ডিপোজিট ব্যালেন্স পাবেন না।  

 

►ভুল নং ৩ – সঠিক এমাউন্ট না লিখা কিংবা ভুল এমাউন্ট লিখে ডিপোজিট সাবমিট করা
অনুগ্রহপূর্বক নিশ্চিত করুন যে, ক্যাশ আউটের টাকার পরিমাণের সাথে আপনার ডিপোজিট ফর্মে লিখা টাকার অঙ্কটি একই, ভুল ইনফারমেশন এর কারণে ফান্ডে মিসিং হলে Baji কোন-ভাবেই দায়ী থাকবে না।       

 

►ভুল নং ৪ – ৫০০ টাকার নিচে ক্যাশ আউট করা
আমাদের সর্বনিম্ন ডিপোজিটের পরিমাণ ৫০০ টাকা। আপনি যদি ৫০০ টাকার নিচে ক্যাশ আউট করেন তাহলে সেই ক্যাশ আউটের বিপরীতে আপনি কোন ডিপোজিট রিকোয়েস্ট পাঠাতে পারবেন না। তবে, এই ভুলটি করে ফেললে কোম্পানির যে নাম্বারে ক্যাশ আউট করেছেন সেই একই Baji এজেন্ট নাম্বারে আপনার একই ই-ওয়ালেট নাম্বার থেকে বাকি টাকা ক্যাশ আউট করে ৫০০ টাকার মিনিমাম লিমিটটি কমপ্লিট করতে হবে। 

 

►ভুল নং ৫ – আপনার সঠিক রেফারেন্স নাম্বারটি চিনতে না পারা
ট্রানজেকশন আইডি/রেফারেন্স নম্বর হল ক্যাশ আউট সনাক্তকরণ একটি নম্বর অর্থ্যাৎ রেফারেন্স নাম্বার অথবা আপনার ক্যাশ আউটের ট্রাঞ্জেকশন আই,ডি একই বিষয়। রকেটের ট্রাঞ্জেকশন আই,ডি ১০ ডিজিটের হয় এবং বিকাশ এবং নগদের ট্রাঞ্জেকশন আই, ডি দেখতে অক্ষর এবং সংখ্যার একটি সংমিশ্রিত রূপ হবে। আপনার ক্যাশ আউটের স্লিপটি থেকে ট্রাঞ্জেকশন আই,ডি খুঁজে কপি করুন এবং সেটি ডিপোজিট ফর্মের রেফারেন্স নাম্বারের ঘরে নির্ভুলভাবে লিখুন। তারপর সেই ডিপোজিট রিকোয়েস্ট আমাদের পাঠান। রেফারেন্স নাম্বার লেখার সময় শূন্য (০) এবং ইংরেজি অক্ষর O এর ব্যবহারের ব্যপারে অবশ্যই খেয়াল রাখবেন।

 

►ভুল নং – ৬ – একটি ইনভেলিড ট্রান্সেকশান স্লিপ দিয়ে ডিপোজিট রিকুয়েস্ট সাবমিট করা
এস এম এস নোটিফিকেশনের স্ক্রিনশট দিয়ে ডিপোজিট রিকুয়েস্ট দিবেন না, কারন এই ধরনের স্ক্রিনশট দিয়ে সাবমিট করা ডিপোজিট এখন আমাদের পেমেন্ট টীম রিজেক্ট করে দিচ্ছে। এজন্য এই ব্যপারে আমাদের পরামর্শ হচ্ছে, আপনি বিকাশ, নগদ বা রকেটের মোবাইল মেনু ব্যবহার না করে সব সময় এপপ ব্যবহার করুণ। যদি আপনি মোবাইল মেনু ব্যবহার করে থাকেন, উদাহরন সরূপ বিকাশের *২৪৭# মেনু দিয়ে ক্যাশ আউট করে থাকেন, তাহলে আপনাকে মোবাইল ব্যাঙ্কিং এপপ অর্থাৎ বিকাশ এপপ ইন্সটল করে লগিন করতে হবে এবং সেখানে ট্রানজেকশান হিস্টোরি থেকে ভেলিড ট্রান্সেকশান স্লিপের স্ক্রিনশট নিতে হবে।

জেন্টেল রিমাইন্ডার, আপনি যেই স্ক্রিনশট বা স্লিপটি আপলোড দিবেন সেটিতে যেন অবশ্যই আপনার ট্রান্সেকশান ডেট, টাইম, ট্রান্সেকশান আইডি এবং ক্যাশ আউটের টাকার পরিমান পরিষ্কার ভাবে দেখা যায়। ক্যাশ আউটের স্লিপটি ডিপোজিট ফর্মে দেখানো স্লিপ আপলোডের নির্দৃষ্ট জায়গায় আপলোড না করলে অথবা স্লিপটি সংযুক্ত না করেই ডিপোজিট রিকোয়েস্ট পাঠিয়ে দিলে স্লিপ বিহীন ডিপোজিট রিকোয়েস্টটি আমাদের সিস্টেমে সয়ংক্রিয়ভাবে বাতিল হয়ে যাবে। সেক্ষেত্রে আপনাকে মেয়াদ উত্তীর্ণ হয় নি এমন বৈধ স্লিপ যথাস্থানে আপলোড বা সংযুক্ত করে পুনরায় একটি ডিপোজিট রিকোয়েস্ট পাঠাতে হবে। তাহলেই আমরা আপনার ডিপোজিট দ্রুত গতিতে প্রদান করতে সক্ষম হব।

 

►ভুল নং ৭ – কোন ডুপ্লিকেট স্লিপ আপলোড করা
আপনি যদি একবার সফলভাবে ডিপোজিট হবার পর সেই ট্রাঞ্জেকশন স্লিপ অথবা পূর্বে ব্যবহৃত হয়ে যাওয়া কোন স্লিপ দিয়ে নতুনভাবে কোনও ডিপোজিট রিকোয়েস্ট পাঠান তাহলে সেই ডিপোজিট রিকুয়েস্টটি আমাদের মনিটিং টিম রিজেক্ট বা বাতিল করে দিবে এবং আপনার আপনার একাউন্টটি সাময়িকভাবে সাস্পেন্ড করা হবে। এ ধরনের ক্ষেত্রে আপনাকে, আমাদের লাইভ চেটে এসে আপনার একাউন্টটি পুনরায় সচল করে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করতে হবে, একাউন্ট সচল হলে একটি ভেলিড স্লিপ দিয়ে আপনাকে পুনরায় রিকুয়েস্ট সাবমিট করতে হবে। মনে রাখবেন; এই ভুলটি সামান্য হলেও ভুলটি এড়িয়ে চলবেন কারণ স্লিপ ডুপ্লিকেশনের ভুল আপনার একাউন্টটির মানকে এবং আপনার সুনামকে দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে।

 

►ভুল নং ৮ – ব্যাংককপে সার্ভিসে অসম্পূর্ণ তথ্য দিয়ে ডিপোজিট ফরম সাবমিট করা
সম্পূর্ণ ক্যাশাউট প্রসেস ও ফরম ফিলাপের জন্য ব্যাংককপে সার্ভিসে আপনাকে সর্বমোট ১০ মিনিট সময় দেওয়া হবে। প্রথমত, ব্যাংককপে সার্ভিসে প্রদর্শিত যেকোনো বিকাশ/নগদ বা রকেট নম্বরে টাকা ক্যাশ আউট করুণ। দ্বিতীয় ধাপে, আপানার সমস্ত ক্যাশ আউট ইনফরমেশান যেমন রেফেরেন্স নম্বর, ক্যাশ আউট নম্বর, স্ক্রিনশট, প্রভৃতি দিয়ে পেমেন্ট গেইটওয়ে এর ডিপোজিট ফরমটি ফিলাপ করুণ। মনে রাখবেন, সকল সঠিক তথ্য প্রদান করা এবং ডিপোজিট ফরমটি সাবমিট করা এই সমস্ত কাজ ই কমপ্লিট করতে হবে অই ফিক্সড ১০ মিনিটের মধ্যে, এই সময়ের মধ্যে ভুল করেও পেইজটিকে রিফ্রেশ দেওয়া যাবে না অথবা পেইজটি কেটে দেওয়া যাবে না, তানাহলে, আপনার অসম্পূর্ণ তথ্য দিয়েই একটি আটোমেটিক ডিপোজিট রেকুয়েস্ট সাবমিট হয়ে যাবে, সেক্ষেত্রে আপনাকে পুনরায় একটি সঠিক রিকুয়েস্ট সাবমিটের জন্য এই ভুল রিকুয়েস্টটি রিজেক্ট বা বাতিল হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

19471cookie-check৮ টি কমন মিস্টেক বা ভুল যা ডিপোজিট করার সময় সচরাচর আমাদের ইউজাররা করে থাকে।